শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বিট পুলিশিং এর সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বজ্রপাতে নিহত ১ পাঁচবিবিতে ডিবি পুলিশ কর্তৃক ০১(এক)কেজি ৫০(পঞ্চাশ)গ্রাম শুকনা গাঁজাসহ দুইজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নড়াইলের কয়েক হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল বাঁশের সাঁকোই তাদের ভরসা!! মুন্সীগঞ্জ‌ে টঙ্গীবাড়ীর আন্তঃ ইউনিয়ন প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা-২০২২ মঠবাড়িয়ার ধর্ষণে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্বা ॥ ধর্ষক গ্রেফতার কালিগঞ্জে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে নেছারাবাদে “যোগাযোগ দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ” অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে জেলা পুলিশের একাধিক অভিযানে আটক-২ ইয়াবা ও গাজা উদ্ধার
ভারতের রাজনৈতিক দলগুলির তহবিলে প্রতি বছর কত টাকা অনুদান জমা পড়ে?

ভারতের রাজনৈতিক দলগুলির তহবিলে প্রতি বছর কত টাকা অনুদান জমা পড়ে?

ভারতের রাজনৈতিক দলগুলির তহবিলে প্রতি বছর কত টাকা অনুদান জমা পড়ে? আঞ্চলিক দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে ধনী দলই বা কোনটি? নির্বাচন কমিশনকে জমা দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্র্যাটিক রিফর্মস (এডিএস)’। রিপোর্টে মিলেছে নানা চমকপ্রদ তথ্য। জেনে নিন সেগুলি কী কী?

আঞ্চলিক দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থসাহায্য পেয়েছে মহারাষ্ট্রের শিবসেনা। উদ্ধব ঠাকরের দলের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১৬-’১৭ অর্থবর্ষে ২৬৭টি ডোনেশন এসেছে দলীয় তহবিলে। তা থেকে তহবিলে জমা পড়েছে ২৫ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা। আঞ্চলিক দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে ধনী দল হিসাবে শীর্ষে রয়েছে শিবসেনার নাম।

শিবসেনার পরেই রয়েছে আম আদমি পার্টি (আপ)। নির্বাচন কমিশনকে আপ জানিয়েছে, তাদের তহবিলে ৩,৮৬৫টি সূত্র থেকে ২৪ কোটি ৭৩ লক্ষ টাকা জমা পড়েছে। পিছিয়ে নেই পঞ্জাবের শিরোমণি অকালি দল (এসএডি)-ও। এসএডি রয়েছে তিন নম্বরে। তাদের তহবিলে এসেছে ১৫ কোটি ৪৫ লক্ষ টাকার ডোনেশন।

ধনীতম আঞ্চলিক দল হলেও শিবসেনার পক্ষে চিন্তার বিষয় হল, ২০১৫-’১৬ অর্থবর্ষের তুলনায় ডোনেশন থেকে তাদের আয় কমেছে প্রায় ৭০ শতাংশ। কেননা ওই আর্থিক বর্ষে শিবসেনার তহবিলে জমা পড়েছিল ৬১ কোটি ১৯ লক্ষ টাকা।

২০১৫-’১৬ অর্থবর্ষে যে দলগুলির তহবিল সবচেয়ে বেশি ফুলেফেঁপে উঠেছিল তারা হল, অসম গণপরিষদ (এজিপি) এবং কর্নাটকের জেডি(এস)। আগের অর্থবর্ষের তুলনায় ৪৩ লক্ষ টাকা এজিপি-র তহবিলে আসায় তা বেড়েছিল ৭,১৮৩ শতাংশ। ওই অর্থবর্ষেই ৪ কোটি ২ লক্ষ টাকা জমা পড়ায় জেডি(এস)-এর তহবিল বেড়েছিল আগের অর্থবর্ষের তুলনায় ৫৯৬ শতাংশ।

দানের অর্থ থেকে দেশের সবক’টি আঞ্চলিক দলের মোট আয় হয়েছে ৯১ কোটি ৩৭ লক্ষ টাকা। ৬,৩৩৯টি ডোনেশন থেকে ওই পরিমাণ অর্থ এসেছে তাদের তহবিলে। এর মধ্যে শিবসেনা, আপ এবং এসএডি, এই তিন দলের ঘরেই এসেছে ৬৫ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ ৭২.০৫ শতাংশ অর্থ।

দলীয় তহবিলে জমা পড়া ডোনেশনের মধ্যে ১,৯১৯টি এসেছে নগদে। যার আর্থিক মূল্য ২ কোটি ৮২ লক্ষ টাকা (৩.০৯ শতাংশ)। এর মধ্যে পুদুচেরির অল ইন্ডিয়া এনআর কংগ্রেস (এআইএনআরসি) পেয়েছে সবচেয়ে বেশি অর্থ। তাদের তহবিলের জন্য মোট ৬৫ লক্ষ টাকা নগদে মিলেছে।

রাজ্যগুলির মধ্যে অসমের মানুষজনই রাজনৈতিক দলগুলির তহবিলে সবচেয়ে বেশি অর্থসাহায্য (৭২ লক্ষ ৭ হাজার টাকা) করেছে। এর পরেই রয়েছে পুদুচেরির নাম। সেখানকার বাসিন্দারা রাজনৈতিক দলগুলিকে ৬৫ লক্ষ ৩ হাজার টাকা দান করেছে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫ শুক্রবার ১০ অগস্ট ২০১৮

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © MKProtidin.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com