শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
রাজশাহীর কাঁটাখালীতে আব্বাসের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা নড়াইলের ইতনা ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে  পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত  রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে বাসের চাপায় বাবা ছেলে নিহত সন্তান প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত, পিতার দায়িত্ব তার ভরণপোষণের, জানাল সুপ্রিম কোর্ট বাহরাইনে HSC ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত দিদির পাড়ায় দুই দাদার লড়াই জমে উঠেছে কলকাতা পৌরসভার নির্বাচন টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য খায়রুজ্জামান লিটনের শ্রদ্ধা নিবেদন সোনারগাঁয়ে ৩০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ০২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, পিকআপ জব্দ বিএমএসএফ হবে প্রকৃতই সাংবাদিকবান্ধব সংগঠনে –কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ গোয়ায় তৃনমূল দলের বাড়া পাতে ছাই ফেলে দিল, গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টি
সোনারগাঁয়ে পাইকারী পর্যায়ে কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম।।মানুষের কল্যাণে প্রতিদিন

সোনারগাঁয়ে পাইকারী পর্যায়ে কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম।।মানুষের কল্যাণে প্রতিদিন

মাজহারুল রাসেল : সোনারগাঁ উপজেলায় পাইকারী পর্যায়ে ব্রয়লার মুরগির দামে সন্তুষ্ট নয় প্রান্তিক খামারিরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে ব্রয়লার মুরগির উৎপাদনে যে পরিমাণ খরচ হচ্ছে সেই খরচও উঠছেনা। খামারি পর্যায়ে উপজেলায়  প্রতি ১ কেজি ওজনের ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে গড়ে ১০০ টাকায়। যার ফলে প্রতিনিয়ত লোকসানে হতাশ হয়ে পড়ছেন খামারিরা।
উপজেলার পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রান্তিক খামারিদের তথ্যমতে, একটি ডিমের উৎপাদন ব্যয় প্রায় ৬ টাকার অধিক। এছাড়াও এক কেজি ওজনের একটি ব্রয়লার মুরগির উৎপাদন ব্যয় হয় ১১৫-১২০ টাকার মধ্যে। কিন্তু বর্তমানে খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বস্তা প্রতি প্রায় ২৫০ টাকা। পাশাপাশি বাচ্চার দাম বৃদ্ধি সহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক ব্যয় যোগ হওয়ায় এক কেজি ওজনের একটি ব্রয়লারের উৎপাদন ব্যয় বেড়েছে। সেক্ষেত্রে ১২০ টাকার নিচে কোনাভবেই বিক্রি করা সম্ভব নয়বলে জানিয়েছেন খামারিরা।
খামারিরা জানিয়েছেন যে হারে খাদ্য ও বাচ্চার দাম বেড়েছে সেই তুলনায় বাজারে ডিম ও মুরগির দাম পাওয়া যাচ্ছেনা। যার ফলে প্রতিদিনই লোকসান গুনতে হচ্ছে। এতে করে খামার চালিয়ে যাওয়া কষ্টসাধ্য। এসময় অবিলম্বে খাদ্য ও বাচ্চার দাম কমানোর দাবিও জানান খামারিরা।
পৌরসভার ব্রয়লার খামারি মাসুদ বলেন, বর্তমানে শেডে মুরগি রেডি হচ্ছে ১৬০০ পিস। প্রতিটি বাচ্চা কেনা আছে ৪২ টাকা দরে। এছাড়াও খাদ্যের দাম বাড়তি। বর্তমানে পাইকারী বিক্রি হচ্ছে ১০০-১১০ টাকা। ২২-২৪ দিন পর্যন্ত মুরগি পালনে খরচ হবে গড়ে ১২০ টাকা। ১০০-১১০ টাকায় মুরগি বিক্রি করলে লাভ হবে নাকি লোকসান হবে হিসাব করুন এমন একটি প্রশ্ন ছুড়ে পালটা জবাব চান তিনি।
বারদী ইউনিয়নের খামারি সেলিম বলেন, বাচ্চার দাম ১০-১৫ টাকা হওয়া উচিৎ । তাহলে ব্রয়লার মুরগি পালন করে বর্তমান দামে বিক্রি করলে কিছু লাভ করা সম্ভব হবে। তাছাড়া ফার্ম করে লাভ তো দূরে থাক চালানও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা বলে হতাশা প্রকাশ করেন।
সোনারগাঁও উপজেলা পোল্ট্রি ডিলার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জহিরুল ইসলাম খোকন বলেন, বর্তমান বাজারে মুরগির বাচ্চা,খাবার ও প্রয়োজনীয় ওষুধের দাম প্রচুর তাই বর্তমান দামে ডিম ও ব্রয়লার বিক্রি করে কোন খামারিই সন্তুষ্ট নয়। কেননা লোকসান দিয়ে ব্যবসা করে কখনও সন্তুষ্ট থাকা যায়না। গত বছরও করোনায় অনেক টাকা লোকসান গুনেছি এ বছরও গুনছি। মুরগির ফার্মের ব্যবসা আর করা যাবেনা বলেও তিনি হতাশা ব্যক্ত করেন।
Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © MKProtidin.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com