সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অর্থ সহায়তা প্রদান করলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম পিরোজপুরে র‌্যাবের অভিযানে ৭৯ বোতল ফেনসিডেল সহ আটক ০১ বঙ্গবন্ধুর স্মরণে সাংবাদিক আজাদী’র একটি অসাধারণ গান জেলা পুলিশ সাতক্ষীরার মাসিক কল্যান সভা ও অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত- নিরাপত্তা ঝুঁকিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী : ডিএমপি কমিশনার জামালপুরে ৩৫ বিজিবি ব্যাটালিয়ন ৫ কোটি ৭৩ লক্ষ ৬৫ হাজার ৫৪১ টাকা মূল্যের বিভিন্ন মাদকদ্রব্য ধ্বংস করেছে সেই শিক্ষিকার মৃতদেহ উদ্ধার, ছাত্র আটক নড়াইলে শারীরিক প্রতিবন্ধীকে হাতুড়ি পেটা চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু মিউজিশিয়ান ফাউন্ডেশনের নির্বাচনে অর্থ-সম্পাদক পদে লড়ছেন রতন ঘোষ  পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী উপজেলার আটঘর-কুড়িয়ানা এলাকার পেয়ারা বাগান ভ্রমনে এলেন থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এইচ.ই. মাকাওয়াদি সুমিতমোর
দুর্নীতি ধান্দাবাজ প্রতারক সাবেক ভুয়া অধ্যক্ষ মোঃ হাফিজুরের মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা হওয়ার আরেক ধান্দা “

দুর্নীতি ধান্দাবাজ প্রতারক সাবেক ভুয়া অধ্যক্ষ মোঃ হাফিজুরের মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা হওয়ার আরেক ধান্দা “

 

 

মোঃ শামীম জেলা প্রতিনিধি পটুয়াখালী।

গলাচিপা উপজেলার শ্রেষ্ঠ দুর্নীতিগ্রস্ত প্রথম প্রতিষ্ঠান ১নং আমখোলা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে অবস্থিত ১নং দুর্নীতি ধান্দাবাজ মদির হাট আলিম মাদ্রাসা। উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ১৯৭৫ সালে স্হাপিত হয় এবং উক্ত মাদ্রাসাটি মরহুম করোম আলী খা প্রতিষ্ঠাতা করেন। এবং মাদ্রাসাটি চালু করে কিছু বিশ্বাসঘাতক ও মীর জাফর বেইমানদের ভন্ড প্রতারক কে উক্ত প্রতিষ্ঠানে চাকরির ব্যাবস্হা করে দেন। এই প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠাতার জন্য মরহুম করম আলি খা তার হজ্জে যাওয়ার টাকা দিয়ে সাহায্য করেন এবং প্রতিষ্ঠান টি প্রতিষ্ঠিত করেন।কিন্তু তার নাম মুছে দেওয়ার বিভিন্ন কৌশল করেন এই প্রতারক অধ্যক্ষ মোঃ হাফিজুর রহমান এবং তার অত্যাচারের স্বিকার মাদ্রাসা শিক্ষক, স্টাফ সহ শিক্ষার্থী ও অভিভাবক সহ এলাকার সাধারণ জনগণ।

এই আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হওয়ায় তিনি খুবই কৌশলে ধীরে ধীরে সকল নিয়োগ কমিটি কে গুছিয়ে তার আপন চার ছোট ভাই সহ তার ওরজজাত সন্তান কে চাকরির ব্যাবস্হা করে দেন এবং এদের অনেকেই অল্প শিক্ষিত ও ভুয়া জাল সার্টিফিকেট দিয়ে চাকরি করে। এক প্রকার পারিবারিক মাদ্রাসা তৈরি করে ফেলে। এবং বতর্মানে তারা মোচ তাউয়ে চাকরি করে।

এই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোঃ হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে শুধু একাধিক বার নয়। অনেক অনেক বার দুর্নীতির দায়ে বহুবার উপজেলা জেলা সহ ঢাকা শিক্ষা অধিদ্পতর থেকে তদন্ত এসে সকলেই অকল্পনীয় টাকা খেয়ে তদন্তের ফাইল বন্ধ করে দেয়। এবং অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিগন ও তার কাছ থেকে টাকা খেয়ে বসে আছে। সে আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতা থেকে বতর্মান এমপি পযর্ন্ত। এই সাবেক অধ্যক্ষ কিছুদিন হয় অবসারে গিয়েছে তারপরও বিভিন্ন কৌশলে আওয়ামীলীগ নেতাদের মেনেজ করে বতর্মান এমপির কাছ থেকে সভাপতি হওয়ার জন্য ডিউলেটার নিয়ে এসে সভাপতি হয়। এবং সে প্রায়ই কোন না কোনো কিছু দুর্নীতি করে তার জন্য একাধিক বার প্রতিষ্ঠানের বেতন ভাতা আটকিয়ে যায়। তা ছুটানের জন্য অনেক আওয়ামীলীগ নেতারা উপজেলা শিক্ষা অভিসার কে সুপারিশ করে। এরকম হাজারও প্রমাণ রয়েছে।

অনেক শিক্ষক শিক্ষার্থী সহ অবিভাবক রয়েছে যারা এই প্রতিষ্ঠানের সাথে ওতপ্রোতভাবে জরীত তাদের ক্ষতিহবে এই চিন্তা করে কিছু স্বীকার করতে পারছেনা এবং বলতে পারছেনা । এবং উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টি কে বা কাহারা প্রতিষ্ঠান করেছে তাই ঐ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রোবিন শিক্ষক ও এলাকার অনেক বয়স্ক মুরুব্বিয়ানার কাছে জিগ্গেস করলে মরহুম মোঃ করম আলী খা এর নাম খুজে পাওয়া যায়। এবং তিনিই একমাত্র প্রতিষ্ঠাতা।

বতর্মান সরকারের সবচেয়ে বড় সমালোচনা কারী এবং সার্থ হাসিল কারী এই দুর্নীতিবাজ মোঃ হাফিজুর রহমানের আওয়ামীলীগ নেতাদের আশ্রয়স্তলে বসবাস করে। এজন্য প্রতিটি সমস্যা থেকে অব্যাহতি পায়। এলাকার সাধারণ জনগণ বলে ওকে পৃথিবীর কেউ ধংশ করতে পারবেনা সংয়ঙ আল্লাহ ছাড়া।

এলাকার সাধারণ জনগণের সর্ব শেষ দাবি এই ভুয়া সাইনবোর্ডে ভুয়া প্রতিষ্ঠাতা সেজে মোঃ হাফিজুর রহমান মাদ্রাসায় টাঙিয়ে দিতে চাচ্ছিল। যা সাধারণ জনগণের ক্ষিপ্ত হলে তা সরিয়ে ফেলা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © MKProtidin.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com