শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
ঝিকরগাছায় দীর্ঘপ্রতিক্ষার পর কমিটি পেল পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ নলতায় আনিছুজ্জামান খোকন মেম্বরের মাতা ও পুত্রের মৃত্যুবার্ষিকী এবং শীতবস্ত্র বিতরণ”  ভৈরবে বিনামূল্যে প্রতিবন্ধী ও প্যারালাইজড রোগীদের চিকিৎসা সেবা ক্যাম্পের উদ্ধোধন মঠবাড়িয়ায় থানা পুলিশের উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গী বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত স্টেজ শো নিয়ে তুমুল ব‍্যস্ত সময় পার করছেন কণ্ঠশিল্পী রিয়া ঝিকরগাছায় নারীর অধিকার বিষয়ক উই প্রকল্পের শিক্ষার্থীদের জন সমাবেশ অনুষ্ঠিত  ইতালীতে সিলেট জেলা ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন অভিষেক ২০২৩ অনুষ্ঠান উৎযাপিত থানায় আগত সেবা প্রত্যাশীদের যথাযথ আইনি সহায়তা প্রদান করুন : আইজিপি রাঙামাটিতে কাঠভর্তি ট্রাকে ব্রাশ ফায়ার, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচল চালক-হেলপার সাতক্ষীরায় নিরাপদ অভিবাসন ও দক্ষতা উন্নয়ন শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত
ফসল রক্ষা করতে রেনামাইসিন ট্যাবলেট

ফসল রক্ষা করতে রেনামাইসিন ট্যাবলেট

ব্রজেন দাশ : আশাশুনির গাবতলা গ্রামের বিলে ধানের রোগ নির্ণয়ে ব্যর্থ কৃষকরা। এগারো শত বিঘা জমিতে ধান লাগিয়ে কৃষকেরা এখন হাহাকার করছে। না পারছে রোগ নির্ণয় করতে না পারছে কোন সঠিক প্রতিশোধক ব্যবহার করতে।গাবতলা, কাটাখালী ও খেজুরডাঙ্গা গ্রামের ৯০ ভাগ মানুষের নাওয়া খাওয়া এই ফসলের উপর নির্ভর করে।এলাকাবাসীর মাঝে হতাশা বিরাজ করছে।

স্থানীয় কৃষক সুকোমল দাশ জানান, এলাকায় অধিকাংশ লোক কৃষি বিষয়ে তেমন অজ্ঞ না। ধানের শীষ দেখা দেওয়ায় পর শীষগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে।এক এক রাতে বিঘা বিঘা জমির ফসল এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।কেও বলছে এটা ব্লাস্ট রোগ ,কেও বলছে এটা খোল পঁচা রোগ। কৃষকেরা অনন্যোপায় হয়ে জমির রোগাক্রান্ত কিছু ধানের শীষ নিয়ে ছুটছে কীটনাশকের দোকানে।দোকানিরা তাদের সুবিধার্থে যে কীটনাশক ব্যবহার করতে বলছে কৃষকেরা সেটি ব্যবহার করছে। চড়া দামে কীটনাশক ব্যবহার করেও ফসলের কোন পরিবর্তন সাধিত হচ্ছে না।
কোন কোন ধরনের কীটনাশক ব্যবহার করছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন – ট্রুপার ,ফিলিয়া , লুমেকটিন ,রাইডার প্লাস এমনকি কবুতর এর পাতলা পায়খানা, রানীক্ষেত, রক্ত আমাশয় রোগের জন্য ব্যবহারিত রেনামাইসিন ট্যাবলেট ও ব্যবহার করা হচ্ছে। কিন্তু কোনভাবেই এ রোগ থেকে পরিত্রাণ পাচ্ছেনা কৃষকেরা।

আরেকজন কৃষক জানান জমিতে ধান লাগিয়ে এই পর্যন্ত বিঘা প্রতি ৮ – ৯ হাজার টাকা খরচ করা হয়ে গেছে।এই ফসল ঘরে না তুলতে পারলে তাদের দুঃখ দেখার লোক থাকবে না।তিনি আরো বলেন এ যেন করোরা ভাইরাসের প্রতিরূপ। কোনভাবেই ফসলের এই শীষ শুকিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করা যাচ্ছে না।

কবুতরের রোগের ঔষধ পর্যন্ত ব্যবহার করা হচ্ছে ধানের ক্ষেতে। কৃষকেরা চড়া দামের কীটনাশক প্রয়োগ করেও কোন সমাধান খুঁজে পাচ্ছেনা। শীষ শুকানো রোধ করতে সঠিক রোগ এবং প্রতিশোধ সম্পর্কে জানতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর কাছে আকুল আবেদন জানায় এলাকাবাসী। যাতে করে কৃষকরা হয়রানির শিকার না হয় এবং ধান চাষ করতে আগ্রহ প্রকাশ করে।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © MKProtidin.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com